স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাসে মহাবিপ্লবী যতীন্দ্রনাথ দাস

শুভাশিস মজুমদার


বিপ্লবী যতীন্দ্রনাথ মুখোপাধ্যায় (বাঘা যতীন) এবং আর এক যতীন— যতীন্দ্রনাথ দাস। ২৭ শে অক্টোবর,১৯০৪ সালে বিপ্লবী যতীন্দ্রনাথ দাস জন্মগ্রহণ করেন। বাঘা যতীনের চেয়ে পঁচিশ বছরের ছোট ছিলেন বিপ্লবী যতীন্দ্রনাথ দাস। কিন্তু দুই যতীনের উদ্দেশ্যই ছিল এক। ভারতের স্বাধীনতা। স্কুলে পড়তে পড়তেই অনুশীলন সমিতিতে যোগ দিয়ে বিপ্লবী জীবন শুরু যতীন্দ্রনাথ দাসের। পরে তিনি মহাত্মা গাঁধীর ডাকে যোগ দেন অসহযোগ আন্দোলনে। এই আন্দোলন করতে গিয়েই গ্রেফতার  হন প্রথম বার। সময়টা ১৯২১। সেই তাঁর প্রথম জেলে যাওয়া। সেই সময়ের কথা উল্লেখ করে সুভাষচন্দ্র লিখেছিলেন, ‘আমার মনে আছে, ১৯২১ সালে পূজার ঠিক আগে আমরা যখন রসা রোডে কাপড়ের দোকানের সামনে পিকেটিং করি, তখন তিনি আমাদের সঙ্গে ছিলেন। অনেকের মতো তাঁকেও জেলে পাঠানো হয়, কিন্তু মুক্তিলাভের পর তিনি নিজেকে সক্রিয়ভাবে দেশের কাজে নিয়োজিত রাখেন, অনেকেই যা করেননি।’ পরে সুভাষচন্দ্রের হাতে গড়া ‘বেঙ্গল ভলান্টিয়ার্স’ দলে তিনি মেজরের পদ পান। বঙ্গবাসী কলেজে পড়ার সময় তাঁকে আবার গ্রেফতার করা হয়। রাখা হয় ময়মনসিংহের জেলে। রাজনৈতিক বন্দিদের সঙ্গে পুলিশের খারাপ আচরণের প্রতিবাদে সেখানে তিনি অনশন শুরু করেন। কুড়ি দিন অনশনের পরে জেল সুপার ক্ষমা চাইতে বাধ্য হন। একদা অসহযোগ আন্দোলনের এই বিপ্লবী দীক্ষিত হন সশস্ত্র আন্দোলনের ভাবধারায়। বোমা তৈরি করতে শেখেন উত্তরপ্রদেশে, বিপ্লবী শচীন্দ্রনাথের কাছ থেকে। যোগাযোগ হয় ভগৎ সিংহের সঙ্গে। ১৯২৯ সালের ১৪ জুন যতীন দাসকে লাহৌর যড়যন্ত্র মামলার অভিযোগে কলকাতার ডোভার রোডের বাড়ি থেকে গ্রেফতার করা হয়, পাঠানো হয় লাহৌরের বোরস্টাল জেলে। ইউরোপীয় বন্দিদের মতো ভারতীয় রাজনৈতিক বন্দিদেরও সমান মর্যাদা ও সুযোগ সুবিধা দিতে হবে— এই দাবিতে সেখানে অনশন শুরু করেন যতীন দাস। তাঁর অনশন ভেঙে দেওয়ার বারবার চেষ্টা করে পুলিশ। কিন্তু পারে না। শেষের দিকে যতীন দাসের শারীরিক অবস্থার এতটাই অবনতি হয় যে এক সময় তাঁকে আদালতে আনাও সম্ভব হত না। ২২ অগস্ট, লাহৌর জেল প্রশাসনের বিশেষ অনুমতি নিয়ে ভগৎ সিংহ এবং বটুকেশ্বর দত্ত যতীনকে দেখতে বোরস্টাল জেলে আসেন। মাত্র ২৫ বছর বয়সে, ১৯২৯ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর (আজকের দিনে) লাহৌর জেলে দীর্ঘ ৬৩ দিন অনশনের পরে মারা যান যতীন দাস। 

লাহৌর ষড়যন্ত্র মামলার অন্যতম বন্দি অজয় ঘোষ লিখেছেন, ‘হাসপাতালে এসে দেখলাম যতীন দাস একটা ছোট্ট খাটিয়ায় শুয়ে আছে। তখনও তার জ্ঞান হয়নি। ডাক্তাররা আশঙ্কা করছেন, হয়তো রাত কাটবে না।’ যতীনের মৃত্যুর পরে রবীন্দ্রনাথ লিখেছিলেন, ‘দুঃখের মন্থন বেগে উঠিবে অমৃত/  শঙ্কা হতে রক্ষা পাবে যারা মৃত্যুভীত।’

কলকাতার তৎকালীন মহানাগরিক যতীন্দ্রমোহন সেনগুপ্ত বলেছিলেন, ‘অন্য কোনও দেশ হলে তিনি দেবতার সম্মান পেতেন। ভারতবাসীর কাছে তিনি এখন পূজ্য।’ মৃত্যুর পরে তাঁকে নিয়ে ‘ভারতবর্ষ’ পত্রিকায় লেখা হয়, ‘অনশনে জলমাত্র পান না করিয়া তেষট্টি দিন ধরিয়া মৃত্যুর আবাহন! তিনি অমৃতস্য পুত্রাঃ।’ ‘প্রবাসী’-তে লেখা হয়েছিল, ‘তেষট্টি দিন ধরিয়া তিনি মৃত্যুকে ধীর পদক্ষেপে ক্রমশ নিকটবর্তী হইতে দেখিয়াছেন। কিন্তু ভীত, বিচলিত হন নাই। ধন্য তাঁহার দৃঢ়তা।’ তাঁকে ‘অতিমানবিক’ বলেছিলেন নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু। যতীন্দ্রনাথের মৃত্যুর পরেও হাঁপ ছাড়তে পারেনি ব্রিটিশ সরকার। নিষিদ্ধ করেছিল কাজী নজরুলের ‘প্রলয়শিখা’ কাব্যগ্রন্থটি। যার অন্যতম কবিতাটির নাম ‘যতীন দাস’।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!