সকলেই শিক্ষক ন’ন, কেউ কেউ শিক্ষক

সৈকত চট্টোপাধ্যায়

অনেকের অনেক রকম স্বপ্ন থাকে। সেটা সুস্থতা। কেউ ভাবেন শিল্পী হবেন, কেউ কবি, কেউ এঞ্জিনিয়ার, কেউ কবি। আমি?
আমার বাবা আমাকে বলেছিলেন আই এ এস বা বিসিএস হতে। বলেছিলাম, কে বা ক’জন চেনে তাদের? জবাবে ঠাট্টা করে বাবা বলেছিলেন, তবে আর কী ডাকপিওন হ’। হরেনকে (ডাকপিওন) সব্বাই চেনে।

হতে চেয়েছিলাম ফরেস্ট অফিসার। সারাদিন মাথায় হ্যাট চাপিয়ে জঙ্গলের ভেতর ঘোড়ায় চেপে ঘোরাঘুরি আলোয়-ছায়ায়। বিএস সি পাশ করে যোগ্যতা অর্জনের পরীক্ষার কাগজপত্র আনিয়ে দেখলাম হাঁটতে হবে অনেক। মন মনে বললাম পারব না (কেন যে তেমন মনে হল কে জানে। এখন তো পাহাড়ে অনায়াসে হাঁটি ঘন্টার পর ঘন্টা।)। আর সে পরীক্ষা দেওয়া হয়নি।
ঘটনাচক্রে হয়ে গেলাম মাস্টার। কলেজ শিক্ষক, অস্থায়ী চাকরি। স্বপ্ন দেখা থামল না। তখন যৌবন, স্বপ্ন দেখছি ভালো শিক্ষক হব। সামনে আদর্শ প্রবালদা। প্রবাল সেনগুপ্ত।

একালে অনেক শিক্ষককে দেখে চিনতে পারিনা। অথচ, এখন কত কিসিমের পুরস্কার, জাতীয় শিক্ষক থেকে শিক্ষারত্ন। কিন্তু,
যেমন সকলেই কবি ন’ন কেউ কেউ কবি, তেমন একথা বলা যায় ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা থেকে, শিক্ষা থেকে যে, সকলেই শিক্ষক ন’ন, কেউ কেউ শিক্ষক।
প্রবালদার কাছে শিখেছি অনেক, শিখেছি সহকর্মী হয়ে। অধ্যাপক সেনগুপ্ত প্রথম আলাপেই জানিয়ে দেন যে তাঁর বহু পরিশ্রমের ফসল পি এইচ ডি ডিগ্রিটা আসলে কিছু না। তিনি যা ‘আবিষ্কার’ করেছেন তা একালের যে কোনও ওষুধ দোকানে কয়েক পয়সার বিনিময়ে পাওয়া যায়।
পি এইচ ডি করার উতসাহ কমিয়ে দিলেন, বললেন ছাত্র তৈরি করাই শিক্ষকের প্রধান কাজ।
চাকরি পাকা হবে কিনা তারই তো ঠিক নেই।
– হবে, হবে। আত্মবিশ্বাস রাখো।

দার্জিলিং থেকে বারাসাতে বদলি হয়ে থাকব কোথায় ভাবছি, উনি বললেন আমার বাসায় চলে এসো। তিনি নিজেই তখন ভাড়াটে। তবু নির্দ্বিধায় উঠলাম সেখানেই। বারাসাত কলেজের স্টাফরুমে বিকেলে খুব আড্ডা জমত। সেখানে দর্শন বিভাগের এক অধ্যাপক এসে বললেন, আপনি তো জানেন, আমি মাঝে মাঝে ভাটপাড়ায় গিয়ে পড়াশুনা করি। প্রবালদা বললেন, কলেজ থেকে ঐ কথা বলে বেরোতে, তারপর কোথায় যেতে আমি তার কি জানি?
এই ছিলেন প্রবালদা। অসত্য কথা তাকে দিয়ে বলানো যেত না।
প্রাণ খুলে হাসতে পারতেন, কথা বলতেন স্পষ্ট। এসব তাঁর কাছে শিখেছি, চেষ্টা করেছি সোজা কথা সোজা বলতে। পেয়েছি আত্মবিশ্বাস।
বুঝেছি আত্মবিশ্বাস চাই স্বপ্ন দেখতে। তাই আজও স্বপ্ন দেখি। ছাত্ররা তৈরি হল কিনা কে জানে? তবে তারা যদি সমাজ গড়ার কাজে যোগ দিয়ে থাকে তবে তো সার্থক এই জীবন। সার্থক প্রবালদার কাছে পাওয়া শিক্ষা।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!