শিক্ষকদের আন্দোলনে সরকার অমানবিক, প্রতিহিংসা পরায়ণ, লিখছেন মইদুল ইসলাম

চোয়াল শক্ত করে লড়ে যাচ্ছি৷ আমরা শিক্ষক। কোনো অন্যায় করিনি৷ রাত ১১ টা থেকে ২০০ র বেশি পুলিশ আমার বেলেঘাটার শ্বশুরবাড়ি ঘিরে রেখেছে৷ ২ ঘন্টা ধরে পুলিশ আর আপনাদের ভাইয়ের লড়াই চলছে৷ প্রশাসন শিক্ষক আন্দোলনকে ভয় পাচ্ছে৷ বদলি করে ও প্রশাসন ভয় পাচ্ছে ৷ দাবি আদায়ের কাছাকাছি আমরা৷ আপনারা নিজের মতো করে সোস্যাল মিডিয়াতে প্রতিবাদ করবেন৷আমাকে গ্রেপ্তার করলে যতটা সম্ভব কোর্টের সামনে জমায়েত করবেন৷ সেদিন তীব্র আন্দোলন যেন সবর্ত্র হয়৷ এ লড়াই আমরা জিতব৷ রুটি রোজগারের লড়াই এক ইঞ্চি জমি ছাড়ব না৷ কেউকে কিছূ করতে পারবে না৷ প্রত্যেকে সোস্যাল মিডিয়াতে ঝড় তুলবেন৷ পুতুলদির দেখানো লড়াই আমাদের শিক্ষা দিয়েছে আমরা নতুন ইতিহাস তৈরী করবই৷ কখনও কোনো স্বৈরাচারী সরকার জিততে পারে না , সাময়িক ভয় দেখায় মাত্র৷ পুলিশ এখনো বাড়ির চারপাশে দুর্গের মতো অবস্থান করছে৷

আমরা কোনো অন্যায় করিনি৷ আজ প্রতিবাদ না করলে আর করে প্রতিবাদ করবেন৷ আমাদের দিদিরা যেভাবে লড়াই করেছে আমরা তা থেকে শিক্ষা নিয়েছি৷ দরজার সামনে থেকে পুলিশ সরে গেছে ঠিক, কিন্তু চারপাশে আছে৷ যে পুলিশ টেবিলের তলাতে মাথা লুকিয়ে থাকে তাঁরা আজ অতি সক্রিয়৷ আমি বিশ্বাস করি রাজ্যের সমস্ত গণতন্ত্রপ্রিয় সুধী নাগরিক ,রাজনৈতিক কর্মী ,নেতৃত্ব এবং গণসংগঠন ও শিক্ষক সংগঠন একযোগে প্রতিবাদ করবে৷ লড়াই আরো তীব্র হবে৷ শাষকের রক্তচক্ষু আমাদের মেন্ডদন্ডকে যেন না বাঁকাতে পারে৷ আমাদের অপরাধ কি গণতান্ত্রিকভাবে পেশাগত আন্দোলন করা? সরকার কতটা অমানবিক আর প্রতিহিংসামুলক আচরণ করছে তা আজ নগ্ন হয়েছে৷
(লেখক: মইদুল ইসলাম, রাজ্য সম্পাদক, শিক্ষক ঐক্য মুক্ত মঞ্চ)
১০/০৯/২১. রাত ২.৩৬

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!