Wednesday, July 28, 2021

তেলের দাম বাড়ে ভুল নীতিতে, আন্তর্জাতিক দাম অজুহাত, লিখছেন সঞ্জয় মুখোপাধ্যায়


নিত্য এই দেশে জ্বালানির দাম বৃদ্ধি ঘটে চলেছে।স্বাধীন ভারতে এটা রেকর্ড যে পরপর পেট্রোল ও ডিজেলের দাম ছাড়ালো ১০০ । গ্যাসের দাম প্রায় ৯০০ টাকা ।এর পিছনে আছে আসলে সরকারের অর্থনীতি চালানোর ভ্রান্ত দর্শন।ভুল আর্থিক নীতিতে রাজকোষ ঘাটতি বাড়ে।তখন ঘাটতি কমাতে জ্বালানির উপর কর বসিয়ে তেল থেকে আয় বাড়াতে চেষ্টা করে।
সেটাকে আড়াল করার জন্য বলে, আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে দাম বাড়লে আমরা কি করব? কথাটা ভয়ঙ্করভাবে অসত্য ভাষণ।কারণ একটি ছোট্ট তথ্য দিলেই বোঝা যাবে।
২০১৪ সালে যেদিন মোদি ক্ষমতায় এসেছিলেন সেদিন আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম যা ছিল ব্যারেল প্রতি আজ সেই দাম কমে গিয়ে হয়েছে। তাহলে তো দেশে পেট্রোল ,ডিজেলের দাম কমে যাওয়ার কথা।তার বদলে বাড়ছে কেন? ২০১৪ সালে ডিজেলের দামে নিয়ন্ত্রণ তুলে নেওয়ার সময় মোদি সরকার জানিয়েছিল, ডিজেলের দাম আন্তর্জাতিক বাজারে কমলে এই দেশেও কমবে।তাহলে এখন তো কমেছে বিদেশে দাম, তাহলে ডিজেলের দাম দ্বিগুণ হলো কি করে?

- Advertisement -

করোনা আক্রান্ত অর্থনীতিতে গোটা বিশ্বে লক ডাউনের সময় তেলের দাম একেবারে জলের চাইতেও সস্তা হয়ে গেছিল, কোনো চাহিদাই ছিল না বলতে গেলে, সেই সময়েই সরকার মার্চ থেকে অক্টোবরের মধ্যে পেট্রোলের দাম বাড়িয়েছে পেট্রোলে ও ডিজেলে ১৫ থেকে ১৭ টাকা। বিশ্ব জুড়ে যেখানে তেলের চাহিদা নেই, যোগান এত বেশি যে উপচে পড়ছে সমস্ত আধার, সেখানে অর্থনীতির নিয়মেই দাম কমবে এটাই স্বাভাবিক।সেই সময়েও এই দেশে সরকার দাম বাড়িয়ে গেছে।কারণ? কারণ সরকার চালানোর খরচ তুলতে উপর কর চাপানো হয়।কর্পোরেটের কর ছাড় হোক, আর সরকারি কর্মচারীদের বেতন বাড়াতে হোক, পরিকাঠামো তৈরি হোক কিংবা যুদ্ধ বিমান কিনতে হোক, রাজকোষের ঘাটতি মেটাতে সরকারের কাছে চট জলদি উৎস হলো রাতারাতি তেলের উপর কর চাপিয়ে দেওয়া।এই নীতির বিসর্জন না দিলে এইভাবে এদেশে পেট্রোল ডিজেলের দাম বাড়তেই থাকবে।
এই দাম বৃদ্ধির জন্য দায়ী তাই সরকারের ভুল নীতি।সেটা ঢাকতে শুধু ফাটা রেকর্ডের মতো একটাই কারণ বারবার বলা হয় যে আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বাড়ছে, তাহলে সরকার কি করবে? সরকারের অনেক কিছু করার ছিল। তেলের দাম নিয়ে সরকারের বা সংসদীয় কমিটির সুপারিশ বা নীতি আয়োগের পরামর্শ কোনোটাই সরকার মানে না।তেলের দাম বিকেন্দ্রীকরণের সময় এক কথা বলেছিল যে কেনার দাম বিদেশে কমলে এদেশেও কমবে বিক্রির দাম।কই ? সেটা হয় কী? মাঝে মধ্যে কমানো হয় ,বলা হয় আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে পেট্রোল ,ডিজেল কমল এত পয়সা , কিন্তু দাম যখন এক সঙ্গে এক লাফে বাড়ে, হিসেব করে দেখলে দেখা যাবে তখনো দাম হয় বাড়ে নি ,অথবা অতটা বাড়ে নি যতটা দেশে বাড়ানো হলো।
কথা আরেকটা আছে। দেশে উদারনীতি চালুর পর তেলের দাম নিয়ে একটা সিদ্ধান্ত হয়।যেহেতু সরকার ঘাটতি মেটাতে আর সাহায্য দিচ্ছেনা তাই বিদেশে তেলের দাম কমলে যে টাকা বেঁচে যাবে তাই দিয়ে একটা বিশেষ তহবিল তৈরি করবে ইন্ডিয়ান অয়েল। যেহেতু সমস্ত আমদানি ইন্ডিয়ান অয়েল এর মাধ্যমে হয় তারাই পরিশোধন করে লিটার পিছু দাম নির্ধারণ করার সময় ওই না খরচ হওয়া অর্থ বরাদ্দ থেকে কিছু অর্থ বরাদ্দ করে ভারসাম্য রাখার চেষ্টা করবে। তার জন্য একটা অয়েলপুল অ্যাকাউন্ট আছে অর্থ মন্ত্রকের। একটা পদ্ধতি আছে সেখান থেকে টাকা নিয়ে বিদেশের বাজারে বর্ধিত খরচ মেটানোর , যাতে তেল কেনার খরচ বাড়লে জনগণের উপর চাপ না পড়ে। মোদি সরকারের উচিত ছিল সেই অয়েল পুল একাউন্টের টাকা নিয়ে তেলের দাম নিয়ন্ত্রণে রাখার।সেই চেষ্টা করছে না কেন?


আসলে সরকার নিজেই চায় তেলের দাম বাড়াতে। তাতে সব চাইতে বেশি লাভ সরকারের। যত বাড়বে তেলের দাম, ততই শতাংশের হারে আয় বাড়ে সরকারের।সরকার যদি নিজেই আয় বাড়াতে কর চাপায়, দাম তো বাড়বেই।
রাজকোষ সামাল দেওয়ার জন্য সরকারের এই তেল নির্ভরতা কাটাতে হবে। দাম না বাড়িয়ে জনগণকে রেহাই দিলে জনগণ কিছু সাশ্রয় করতে পারবে। সেই অর্থ সঞ্চয় হিসেবে ব্যাংকে থাকবে। সেই সঞ্চয় অর্থনীতি গঠনে ঋণ হিসেবে কাজে লাগানো যাবে। সরকারের উচিত ছিল এই করোনা আক্রান্ত অর্থনীতিকে ঘুরে দাঁড় করতে সেটাই করা। সব চাইতে বড় দরকার ছিল তেলের দাম কম রেখে শিল্প পণ্য উৎপাদনের খরচ কমানো এবং রপ্তানি খরচ কমাতে এগিয়ে আসা।তাতে দেশে জিনিসের দাম বাড়ত কম। চাহিদা বাড়ত।যে টাকা পেট্রোল ডিজেলের কর থেকে আসছে, তার বদলে সেটা এসে যেতে পারত বাজারে বর্ধিত লেনদেন বাবদ জি এস টি থেকে।তাতে কর্পোরেট আয়ের উপর কর সংগ্রহ বাড়ত, পরিষেবায় জি এস টি থেকে আয় বাড়তো । কোষাগারে রাজস্ব বৃদ্ধি হতো। সেটা তো হয়ই না, উল্টে দেখা যাচ্ছে পেট্রোল ডিজেলে যে আয় তার অনেকটাই খরচ হচ্ছে এই কর্পোরেট তোষণ করতে। গুনাগার গুনছে জনগণ।

- Advertisement -
- Advertisement -

Related Articles

- Advertisement -

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -

Popular Articles

error: Content is protected !!