Friday, June 25, 2021

মুকুল রায়কে সাথে নিয়েই বিধানসভায় লড়েছিল তৃণমূল?

বিজেপির অভ্যন্তরেই এখন এমন প্রশ্ন উঠছে, লিখছেন রুদ্র প্রসাদ ঘোষ

- Advertisement -

একুশের পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনের দিকে এবারে নজর ছিল গোটা দেশের। হাইভোল্টেজ এই নির্বাচনে মমতা – অভিষেক – পিকে জুটির অবিশ্বাস্য ফলাফল এখনও আলোচনার কেন্দ্র বিন্দু। ভোট পূর্ববর্তী সময়ে তৃণমূলের অন্দরে যে ভাঙন শুরু হয়েছিল ভোট পরবর্তী সময়ে একই পদ্ধতিতে বিজেপিকে ভাঙার কাজ শুরু করে দিল তৃণমূল কংগ্রেস। শুরুতেই একসময়ের তৃণমূলের সেকেণ্ড ইন কম্যাণ্ড, বাংলার রাজনীতিতে চাণক্য হিসাবে পরিচিত মুকুল রায়ের মতন দক্ষ পোড় খাওয়া রাজনীতিবিদকে ফের তৃণমূলে ফিরিয়ে এনে রাজ্য বিজেপিকে জোর ধাক্কা দিতে চাইছে তৃণমূল শীর্ষ নেতৃত্ব। এরপর যে একে একে নবনির্বাচিত বিজেপি বিধায়ক, সাংসদ, জেলা নেতৃত্বে এমনকি তৃণমূল ত্যাগী অনেক নেতাদের হাতে তৃণমূলের পতাকা তুলে দেওয়া হবে তা বলাবাহুল্য।

তবে, তৃণমূল তৃতীয়বার ক্ষমতায় আসার পরই কি মুকুল রায়ের এমন সিদ্ধান্ত! নাকি নিজের পুরোনো দলের সাথে যোগাযোগ রেখেছিলেন আগে থেকেই, তা নিয়ে সংশয় থাকছেই। বিজেপির তরফ এখন এরকম সংশয় প্রকাশ করা হচ্ছে অনেক ছোট খাটো নেতাই মুকুলকে এরকম কথা বলতে ছাড়ছেন না। তাঁদের বক্তব্য, সদ্য সমাপ্ত বিধানসভা নির্বাচনে মুকুল রায় এবং তাঁর পুত্র শুভ্রাংশু রায় উভয়কেই প্রার্থী করা হয়। পাশাপাশি, দলের জাতীয় সহসভাপতি হিসাবেও নির্বাচনে মুকুল রায়ের দায়িত্ব ছিল অনেকখানি। কিন্তু কোনভাবেই নির্বাচনে মুকুল রায়কে সক্রিয় ভূমিকা নিতে দেখা যায়নি। ২০১৯ এর লোকসভা নির্বাচনে মুকুল রায় রাজ্যজুড়ে প্রচার করেছিলেন, সাজিয়েছিলেন নির্বাচনের ঘুঁটি। বিধানসভা নির্বাচনে তাঁর এই চুপ থাকা থেকেই জল্পনা শুরু হয়। নিজের কেন্দ্র কৃষ্ণনগর উত্তরেও সেভাবে মুকুল রায়কে প্রচার করতে দেখা যায়নি। পাশাপাশি, বীজপুর থেকে পরাজিত হন মুকুল পুত্র শুভ্রাংশু। প্রশ্ন উঠেছে, যে মুকুল রায় একাধিক নেতা তৈরি করেছেন, নানান কঠিন লড়াইয়ে নিজের দলের প্রার্থীকে জিতিয়ে এনেছেন সেই মুকুল রায়ের না চাওয়াতেই কি শুভ্রাংশু সহ বীজপুরের আসেপাশের প্রায় সব বিধানসভাতেই হারতে হল বিজেপিকে!

কাজেই আনুষ্ঠানিকভাবে মুকুল রায় আজ ফের তৃণমূলে ফিরলেও অঘোষিতভাবে মুকুল রায় কি বিধানসভাতেও তৃণমূলকে সুবিধা করে দিয়েছিলেন, রাজ্য রাজনীতিতে এই প্রশ্ন নিয়ে কিছুদিন সরগম চলবে,এমন ইঙ্গিত স্পষ্ট।

- Advertisement -
- Advertisement -

Related Articles

- Advertisement -

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -
[td_block_7 modules_on_row=”eyJwaG9uZSI6IjEwMCUifQ==” image_floated=”float_left” image_width=”30″ image_height=”100″ show_btn=”none” show_excerpt=”none” modules_category=”above” show_date=”none” show_review=”none” show_com=”none” show_author=”none” meta_padding=”eyJhbGwiOiIwIDAgMCAxNXB4IiwicG9ydHJhaXQiOiIwIDAgMCAxMHB4In0=” art_title=”eyJhbGwiOiI4cHggMCAwIDAiLCJwb3J0cmFpdCI6IjVweCAwIDAgMCJ9″ f_title_font_family=”712″ f_title_font_size=”eyJhbGwiOiIxNSIsInBvcnRyYWl0IjoiMTEifQ==” f_title_font_weight=”500″ f_title_font_line_height=”1.2″ title_txt=”#000000″ cat_bg=”rgba(255,255,255,0)” cat_bg_hover=”rgba(255,255,255,0)” f_cat_font_family=”712″ f_cat_font_transform=”uppercase” f_cat_font_weight=”400″ f_cat_font_size=”11″ modules_category_padding=”0″ all_modules_space=”eyJhbGwiOiIyNCIsInBvcnRyYWl0IjoiMTUiLCJsYW5kc2NhcGUiOiIyMCJ9″ category_id=”” ajax_pagination=”load_more” sort=”jetpack_popular_2″ title_txt_hover=”#008d7f” tdc_css=”eyJwaG9uZSI6eyJtYXJnaW4tYm90dG9tIjoiNDAiLCJkaXNwbGF5IjoiIn0sInBob25lX21heF93aWR0aCI6NzY3LCJhbGwiOnsiZGlzcGxheSI6IiJ9LCJwb3J0cmFpdCI6eyJkaXNwbGF5IjoiIn0sInBvcnRyYWl0X21heF93aWR0aCI6MTAxOCwicG9ydHJhaXRfbWluX3dpZHRoIjo3Njh9″ cat_txt=”#000000″ cat_txt_hover=”#008d7f” f_more_font_weight=”” f_more_font_transform=”” f_more_font_family=”” image_size=”td_150x0″ f_meta_font_family=”712″ custom_title=”Popular Articles” block_template_id=”td_block_template_8″ border_color=”#008d7f” art_excerpt=”0″ meta_info_align=”center” f_cat_font_line_height=”1″ pag_h_bg=”#008d7f” image_radius=”100%” td_ajax_filter_type=”” f_header_font_size=”eyJwb3J0cmFpdCI6IjE1IiwiYWxsIjoiMTgifQ==” f_header_font_weight=”500″ f_header_font_transform=”uppercase” f_header_font_family=”712″ pag_h_border=”#008d7f” m6_tl=”50″ f_header_font_line_height=”1.5″ m6f_title_font_size=”eyJhbGwiOiIxNiIsInBob25lIjoiMTcifQ==” m6f_title_font_line_height=”1.5″]
error: Content is protected !!